পরিকল্পনা বিভাগ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২৮ জানুয়ারি ২০১৬

বিগত পাঁচ বছরে অর্জিত সাফল্য

 

জানুয়ারি, ২০০৯ হতে ০৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৩ পর্যন্ত মোট ২৮৫-টি প্রশিক্ষণ কোর্সের মাধ্যমে সর্বমোট ৮,৩৪০ জন কর্মকর্তাকে বুনিয়াদী, মানব সম্পদ উন্নয়ন, অফিস ব্যবস্থাপনা, দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা, পরিকল্পনা প্রণয়ন, উন্নয়ন কর্মসূচী বাস্তবায়ন, মনিটরিং ও তদারকি এবং আইসিটিসহ বিভিন্ন সময়ে নিবীড় প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে। এ সকল প্রশিক্ষণে পেশাগত বিষয় ছাড়াও কর্মকর্তাদের মাইন্ডসেট পরিবর্তন, নৈতিকতা, মূল্যবোধ, নাগরিক সেবার মান বৃদ্ধি ইত্যাদ বিষয়ে গুরুত্ব আরোপ করা হয়েছে। প্রশিক্ষণের মাধ্যমে কর্মকর্তাগণকে সুশাসনে আরো নিবিড়ভাবে অবদান রাখার জন্য উদ্বুদ্ধ করা হয়েছে। সরকারের ডিজিটাল কর্মসূচী বাস্তবায়নের লক্ষ্যে আইসিটি বিষয়ে কোর্স বৃদ্ধি করা হয়েছে। জানুয়ারি, ২০১১ হতে আইসিটি বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিপ্লোমা কোর্স চালু করা হয়েছে। এ কোর্সের মাধ্যমে মোট ৫৩ জন কর্মকর্তাকে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে। পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার লক্ষ্য, উদ্দেশ্য, কর্মসূচী ও কৌশল নির্ধারণ এবং ৬ষ্ঠ পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার উপর ০৩টি ওয়ার্কশপ আয়োজন করা হয়েছে। এতে দেশের প্রতিথযশা অর্থনীতিবিদ, কম্পিউটার বিশেষজ্ঞ ও সুশিল সমাজের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

 

গবেষণা কার্যক্রম পরিচালনা করাও একাডেমীর অন্যতম প্রধান কাজ। বর্তমান অর্থবছরে ০৮টি গবেষণা কার্যক্রম পরিচালিত  হয়েছে। লব্ধ প্রতিষ্ঠিত গবেষকদের বিভিন্ন  বিষয় ভিত্তিক গবেষণা সংক্রান্ত প্রতিবেদন এর সমন্বয়ে একাডেমী থেকে প্রতিবছর একটি ডেভেলপমেন্ট রিভিউ নিয়মিতভাবে প্রকাশ করা হয়। একাডেমীর অবকাঠামোগত এবং লজিষ্টিক সুবিধা বৃদ্ধির লক্ষ্যে বর্তমান সরকারের আমলে গৃহীত ১৫২৯.০০ লক্ষ টাকায় ‘ভৌত ও প্রশিক্ষণ সুবিধা বৃদ্ধির মাধ্যমে জাতীয় পরিকল্পনা ও উন্নয়ন একাডেমী শক্তিশালীকরণ’ শীর্ষক একটি প্রকল্প বাস্তবায়নাধীন আছে। একাডেমী মানব সম্পদ উন্নয়ন  ও সুশাসন প্রতিষ্ঠান ক্ষেত্রে অবদান রাখছে।

 

১।         ‘ভৌত ও প্রশিক্ষণ সুবিধা বৃদ্ধির মাধ্যমে জাতীয় পরিকল্পনা ও উন্নয়ন একাডেমী শক্তিশালীকরণ’ শীর্ষক ১৫২৯.০০ লক্ষ টাকার প্রকল্প অনুমোদনের পর বর্তমানে তা  বাস্তবায়নাধীন আছে ICT  ও প্রশিক্ষণ বাস্তবায়ন কার্যক্রম বৃদ্ধি পেয়েছে।

২।         পরিকল্পনা ও উন্নয়ন একাডেমীকে  ৩০ আগস্ট, ২০০৯ ‘জাতীয় পরিকল্পনা ও উন্নয়ন একাডেমী’তে উন্নীত করা হয়। প্রাতিষ্ঠানিক উন্নয়নের ফলে প্রশিক্ষণের গুণগত মান বৃদ্ধি পাচ্ছে।

৩।         গত ০৩ ফেব্রয়ারি, ২০১০ তারিখে একাডেমী প্রতিষ্ঠার ২৫ বছর পূর্তি উপলক্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে  ০৩ মার্চ, ২০১০ তারিখে ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে জাঁকজমকপূর্ণভাবে ‘রজত জয়ন্তী’ উদযাপন করা হয়। এতে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী, অন্যান্য মাননীয় মন্ত্রীবর্গ, সংসদ সদস্যগণ এবং সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

৪।         ইতোপূর্বে বিসিএস স্বাস্থ্য ক্যাডার কর্মকর্তাদের বুনিয়াদী প্রশিক্ষণ প্রতি ব্যাচে ৬০জন করে বছরে ০৪টি ব্যাচের প্রশিক্ষণ দেয়া হতো। বর্তমানে প্রতি ব্যাচে ৪০ জন করে বছরে ১০টি বুনিয়াদী প্রশিক্ষণ কোর্স পরিচালনা করা হচ্ছে।প্রতিষ্ঠানের মর্যাদা বৃদ্ধিসহ প্রশিক্ষণ গুণগত মান বৃদ্ধি পাচ্ছে।এ প্রশিক্ষণের মাধ্যমে বিসিএস (স্বাস্থ্য) ক্যাডার কর্মকর্তাদের আরো দক্ষতার সাথে দায়িত্ব পালনের জন্য উপযোগী করা হচ্ছে। 

৫।         ইতোপূর্বে একাডেমীতে প্রকল্প, উন্নয়ন ও আইসিটির ওপর বছরে ৩০-৪০টি কোর্স পরিচালনা করা হতো। গত বছর মোট ৬০টি কোর্স পরিচালনা করা হয়েছে।প্রশিক্ষণের গুনগত মান বৃদ্ধি পাচ্ছে।

৬।         ইতোপূর্বে বিভিন্ন কোর্স পরিচালনা থেকে একাডেমীর বার্ষিক আয় ছিল ৪০-৪৫ লক্ষ টাকা। ২০০৮- ২০০৯ অর্থবছরে ৬৫.০০ লক্ষ টাকা, ২০০৯-২০১০ অর্থবছরে  ১ কোটি ১৫ হাজার ২৯০ টাকা এবং ২০১০-২০১১ অর্থবছরে ১ কোটি ২৪ লক্ষ  টাকা, ২০১১-২০১২ অর্থবছরে ১ কোটি ৫৬ লক্ষ ৬৫ হাজার টাকা এবং ২০১২-২০১৩ অর্থবছরে ১ কোটি ২০ লক্ষ টাকা আয় হয়েছে।

৭।         একাডেমীতে ‘পরিকল্পনা ও প্রকল্প স্টাডি’ শীর্ষক মাস্টার্স ডিগ্রী কোর্স চালু করা চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে।

৮।         সরকারের ডিজিটাল কর্মসূচী বাস্তবায়নের লক্ষ্যে¨ একাডেমীতে ICT বিষয়ক কোর্স বৃদ্ধি করা হয়েছে। ICT বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিপ্লোমা কোর্স প্রথম বারের মতো জানুয়ারি, ২০১১ হতে চালু করা হয়েছে। এ পর্যন্ত মোট ভর্তিকৃত প্রশিক্ষণার্থীর সংখ্যা ৫৪ জন।

৯।         পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার লক্ষ্য, উদ্দেশ্য, কর্মসূচী ও কৌশল নির্ধারণ, ICT পলিসি বাস্তবায়নের রূপরেখা নির্ধারণ এবং ৬ষ্ঠ পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার উপর ০৩টি ওয়ার্কসপ যথাক্রমে ২০.০৬.২০১০, ০২.০৬.২০১০ ও ০৮.০১.২০১২ তারিখে আয়োজন করা হয়েছিল। এতে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী, দেশের প্রথিতযশা অর্থনীতিবিদ, কম্পিউটার বিশেষজ্ঞ ও সুধীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

১০।         সরকারের বৃহৎ উন্নয়ন পরিকল্পনা সমূহ বাস্তবায়নের পাশাপাশি বেসরকারী কর্পোরেট সংস্থা, NGO সেক্টর, ব্যাংক সেক্টর, বীমা সেক্টর কে ক্রমাগতভাবে বর্ধিত হারে উন্নয়ন ও ICT বিষয়ক প্রশিক্ষণে অন্তর্ভুক্ত করা হচ্ছে। ICT বিষয়ক ডিজিটাল বাংলাদেশ  গঠনে ই-গভর্ণনেন্স কর্মসূচী সার্বিক বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ICT তে দক্ষ জনবল তৈরী করা প্রয়োজন। একাডেমী এ লক্ষ্যে গত ২০০৯-২০১০ শিক্ষাবর্ষ হতে প্রতিবছর ০৮টি ICT বিষয়ক প্রশিক্ষণ কোর্স অতি দক্ষতার সাথে পরিচালনা করে আসছে। এ সকল কোর্সে সরকারী বিভিন্ন সংস্থা থেকে কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা নিয়মিত প্রশিক্ষণ গ্রহণ করছেন এবং জাতীয় উন্নয়নে গুরত্বত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছেন। একাডেমী পরিচালিত ০৮টি ICT বিষয়ক কোর্স নিমণরম্নপঃ 1. Post Graduate Diploma in ICT (PGDICT), 2. Electronic Governence and Electronic Commerce, 3. Web Page Development and Deployment, 4. Oracle Based Database Application Design, 5. Computer Basics, 6. Office Automation, 7. Personal Computer Troubleshooting, 8. Microsoft Project.

১১।        জানুয়ারি, ২০০৯ হতে ০৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৩ পর্যন্ত মোট ২৮৫ টি প্রশিক্ষণের মাধ্যমে সর্বমোট ৮,৩৪০ জন কর্মকর্তাকে প্রশিক্ষণের প্রদান করা হয়েছে।


Share with :
Facebook Facebook